কুষ্টিয়ার শ্রেষ্ঠ শিক্ষক ড. হুমায়ুন কবীর

কুষ্টিয়া জিলা স্কুলের সিনিয়র শিক্ষক ড. মোঃ হুমায়ুন কবীর ‘জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ, ২০১৬’ কুষ্টিয়া উপজেলা ও জেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ শ্রেণি শিক্ষক নির্বাচিত হলেন। ড. হুমায়ুন কবীরের জন্ম বর্তমান চুয়াডাঙ্গা জেলার আলমডাঙ্গা থানার রায়সা গ্রামে। তিনি গ্রামের স্কুল থেকে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা সমাপ্ত করে কুষ্টিয়া সরকারী কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা শেষে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় হতে পদার্থবিজ্ঞানে অনার্সসহ এমএসসি ডিগ্রি লাভ করেন এবং ২৮ মে, ১৯৯১ কুষ্টিয়া জিলা স্কুলে সহকারী শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন। জনাব কবীর চাকুরীকালীন অবস্থায় কৃতিত্বের সাথে ঢাকা টিচার্স ট্রেনিং কলেজ হতে বিএড, বাংলাদেশে উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় হতে এমএড ও কুষ্টিয়া সরকারী কলেজ হতে ইংরেজী সাহিত্যে এমএ ডিগ্রি লাভ করেন।

 

তিনি ২০০৭-২০০৮ শিক্ষাবর্ষে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অব এডুকেশন এন্ড রিসার্স’র এমফিল/পিএইচডি কোর্সের ভর্তি পরীক্ষায় সম্মিলিত মেধা তালিকায় প্রথম স্থান অধিকার করেন ও ফেলোশীপপ্রাপ্ত হয়ে Science Education at the Secondary Levels in Greater Kushtia District— Problems and Prospects বিষয়ের উপর পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন। বাংলাদেশ অবজার্ভারসহ বিভিন্ন জাতীয় ও স্থানীয় দৈনিক ও ম্যাগাজিনে জনাব কবীরের পেশাগত গবেষণামূলক বহু প্রকাশনা রয়েছে। তার লেখা স্বাস্থ্যবিষয়ক ‘খাদ্য, পুষ্টি ও স্বাস্থ্যবিধি’, শিক্ষামূলক ভ্রমণকাহিণী ‘স্বপ্নপুরি’, আত্মোন্নয়ন সম্পর্কিত ‘সাফল্যের সিঁড়ি’, আইসিটি বিষয়ক ‘আইসিটি প্রোগ্রামে দক্ষিণ কোরিয়ায় ১২ দিন’ প্রভৃতি পুসত্মকগুলি ইতিমধ্যে পাঠক মহলে বেশ সমাদৃত হয়েছে।

 

Post MIddle

ড. কবীর ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনষ্টিটিউট অব ইসলামিক এডুকেশ এন্ড রিসার্স পরিচালিত বিএড কোর্সের খন্ডকালীন শিক্ষক হিসেবেও কাজ করছেন। ড. কবীরের মতে, ‘শিক্ষার্থীদের মাত্রারিক্ত কোচিং ও প্রাইভেট নির্ভরতা, শিক্ষকের শাসন ব্যবস্থার উপর সরকার কর্তৃক বিধি নিষেধ আরোপের ফলে শ্রেণিকক্ষে শিক্ষার্থীরা চরম বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। ফলে শ্রেণিপাঠদান পুরোপুরি বিপর্যসত্ম হয়ে পড়েছে। এ অবস্থা থেকে পরিত্রাণের জন্য সরকার ও অভিভাবকদের সহযোগিতা একামত্ম অপরিহার্য’। তিনি সকলের দোয়া কামনা করেন।#

 

আরএইচ

পছন্দের আরো পোস্ট