স্টেট ইউনিভার্সিটির ৪র্থ সমাবর্তন

state_univ_main fileশিক্ষা তখনই শক্তি যখন তা পরিবর্তনের জন্যে প্রয়োগ হয়। দেশের উন্নয়নে দরকার যুগোপযোগী শিক্ষায় শিক্ষিত জনশক্তি। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে আধুনিক শিক্ষা নিশ্চিত করতে হবে। স্টেট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ (এসইউবি)-এর ৪র্থ সমাবর্তনে দেওয়া বক্তব্যে শিক্ষামন্ত্রী নূরুল ইসলাম নাহিদ এ কথা বলেন। ১৬ মার্চ (বুধবার) এ সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হয়। সমাবর্তনে স্প্রিং-২০১৪ থেকে ফল-২০১৫ পর্যন্ত সেমিস্টারের মধ্যে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পর্যায়ে উত্তীর্ণ ১৮৫৫ জন শিক্ষার্থী তাদের ডিগ্রি অর্জন করেন।

 

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ-এর মাননীয় রাষ্ট্রপতি কর্তৃক মনোনীত হয়ে শিক্ষার্থীদের ডিগ্রি প্রদান করেন শিক্ষামন্ত্রী নূরুল ইসলাম নাহিদ, এমপি। সমাবর্তন বক্তব্য প্রদান করেন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি)-এর চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবদুল মান্নান। সমাবর্তনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন এসইউবির উপাচার্য অধ্যাপক ড. ইফতেখার গণি চৌধুরী, ট্রাস্টি বোর্ডের সভাপতি ডা. এ এম শামীম এবং নেপালী রাজদূতাবাসের ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদূত সুশীল কুমার লম্সাল।

 

এসইউবির ৪র্থ সমাবর্তনে স্কুল অব বিজনেস অ্যান্ড সোশ্যাল স্টাডিজ এবং সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি ও হেলথ সায়েন্স ফ্যাকাল্টির অধীনে মোট ৯টি বিভাগের শিক্ষার্থীদের হাতে সনদ তুলে দেওয়া হয়। ডিগ্রি অর্জনকারী শিক্ষার্থীদের মধ্যে এ সমাবর্তনে চ্যান্সেলর’স অ্যাওয়ার্ড লাভ করেন ফার্মেসি বিভাগের শিক্ষার্থী জায়েরা ইসলাম ঊর্মি। ভাইস-চ্যান্সেলর’স অ্যাওয়ার্ড পান মোট ১৫ জন শিক্ষার্থী। এ ছাড়া ডিন’স অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন মোট ৩৫ জন শিক্ষার্থী।

 

শিক্ষামন্ত্রী নূরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, শিক্ষা তখনই শক্তি যখন তা পরিবর্তনের জন্যে প্রয়োগ করা হয়। শিক্ষার মূল লক্ষ্য আধুনিক শিক্ষা ও প্রযুক্তিতে শিক্ষার্থীদের দক্ষ করে তোলা। বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজ হলো নতুন জ্ঞান সৃষ্টি করা। দেশে এখন বিশ্ববিদ্যালয়ে আরো বেশি গবেষণা ও ভালো মানের শিক্ষক নিয়োগের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। শিক্ষামন্ত্রী শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে বলেন, ডিগ্রি প্রাপ্তির মাধ্যমে তোমাদের আনুষ্ঠানিক শিক্ষাজীবন শেষ তবে নতুন কর্মজীবন শুরু হলো। আমি তোমাদের উজ্জ্বল ও সুখী জীবন কামনা করছি।

 

অধ্যাপক আবদুল মান্নান বলেন, দেশের শিক্ষাখাতে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূমিকা অনস্বাকার্য। কিন্তু কিছু কিছু বিশ্ববিদ্যালয়ের অনিয়মের কারণে অন্যদের সুনাম নষ্ট হয়। আমি আশা রাখবো, দেশের সব বিশ্ববিদ্যালয় তাদের দায়-দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করবে। ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় অনুষ্ঠিত এ সমাবর্তনে ডিগ্রি প্রদান শেষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশ নেন খ্যাতিমান সঙ্গীতশিল্পী হাবিব ওয়াহিদ। এরপর শিক্ষার্থী, অভিভাবক, শিক্ষক ও অতিথিদের নৈশভোজের মধ্য দিয়ে সমাবর্তন আনুষ্ঠানিকভাবে শেষ হয়।

 

লেখাপড়া২৪.কম/পিআর/এমএএ

পছন্দের আরো পোস্ট