বাকৃবিতে ‘এ্যানিমেল হাজবেন্ড্রী’ দিবস উদযাপন

????????????????????????????????????
বার্ষিক মাথাপিছু দৈনিক ১২০ গ্রাম মাংসের মধ্যে আমরা পাচ্ছি ১০২ গ্রাম আর দৈনিক ২৫০ মিলিলিটার দুধের চাহিদার বিপরীতে পাচ্ছি ১২২ মিলিলিটার । বার্ষিক মাথাপিছু ১০৪টি ডিমের চাহিদার বিপরীতে আমরা ৭০টি করে ডিম পাচ্ছি। উৎপাদন পূর্বের তুলনায় বহুগুনে বাড়লেও ঘাটতি রয়েছে। এ ঘাটতি পূরণে উৎপাদন আরও বাড়াতে এ্যানিমেল হাজবেন্ড্রী গ্রাজুয়েটগণের প্রাণির জাত উন্নয়ন, বিজ্ঞান ভিত্তিক লালন-পালন, আরও নতুন নতুন প্রজাতি ও প্রযুক্তি উদ্ভাবন করতে হবে।

 

সোমবার(১৪ মার্চ-২০১৬) বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘এ্যানিমেল হাজবেন্ড্রী’দিবস ২০১৬ উপলক্ষে পশুপালন অনুষদ আয়োজিত এক সেমিনারে এসব তথ্য জানান বক্তারা। সেমিনারে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের পশুপালন অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. এস ডি চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাকৃবির উপাচার্য প্রফেসর ড.মো. আলী আকবর।

 

দিবসটি উপলক্ষে সকালে পশুপালন অনুষদ থেকে একটি আনন্দ শোভাযাত্রা বের করা হয়। শোভাযাত্রাটি ক্যাম্পাসে বিভিন্ন সড়ক ঘুরে শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন মিলনায়তনে গিয়ে শেষ হয়। পরে সেখানে সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। এতে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিশিষ্ট ডেইরি বিজ্ঞানী প্রফেসর ড. নুরুল ইসলাম।

 

সেমিনারে ১৪ মার্চকে জাতীয় গবাদিপশু দিবস হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান, প্রাণিসম্পদ বিভাগের প্রস্তাবিত অর্গানোগ্রাম দ্রুত বাস্তবায়ন এবং প্রাণী উৎপাদন ও প্রাণী চিকিৎসা নামক দুটি আলাদা অধিদপ্তর গঠনের দাবি জানানো হয়। সেমিনারে বিশেষ অতিথি হিসেবে বাংলাদেশ অ্যানিমেল হ্যাজবেন্ড্রি অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি প্রফেসর ড. সৈয়দ সাখাওয়াত হোসেন, ময়মনসিংহ জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা শরাফত জামান, রেনেটা এগ্রো ইন্ড্রাস্ট্রিজ এর জিএম খালিদ-দীন আহমেদ উপস্থিত ছিলেন।##

 

লেখাপড়া২৪.কম/এমএইচ

পছন্দের আরো পোস্ট