ভালবাসা দিবসের রং বেরং

IMG_1234কবিতায় বলা হয়,  ‘’হৃদয়ে লিখেছিনু তোমায়; বসন্তে তুমি আরও স্নিগ্ধ, আহা আরও উচ্ছল তুমি- ভালবাসা। বসন্তের আগুন-রাঙা শিমুল-পলাশ ভালবাসাকে সত্যিই রাঙিয়ে দেবে’’। মানব হৃদয়ে ফাল্গুনের আবির-উচ্ছ্বাস কাটেনি। একদিন পরই আরেক সুখের লগন। ভালবাসায় সিক্ত হওয়ার দিন। ১৪ ফেব্রুয়ারি। ভ্যালেন্টাইন ডে বা ভালবাসা দিবস। ঋতুরাজ বসন্তের দ্বিতীয় দিনে ভালবাসা দিবসে বাঙালি মনের ভালবাসাও আজ হয় পবিত্র। ফুলে রাঙা আর বাসন্তী মোহে মুগ্ধ।

 

২৬৯ সালে ইতালির রোম নগরীতে সেন্ট ভ্যালেইটাইন’স নামে একজন খৃষ্টান পাদ্রী ও চিকিৎসক ছিলেন। ধর্ম প্রচার-অভিযোগে তৎকালীন রোমান সম্রাট দ্বিতীয় ক্রাডিয়াস তাঁকে বন্দী করেন। কারণ তখন রোমান সাম্রাজ্যে খৃষ্টান ধর্ম প্রচার নিষিদ্ধ ছিল। বন্দী অবস্থায় তিনি জনৈক কারারক্ষীর দৃষ্টহীন মেয়েকে চিকিৎসার মাধ্যমে সুস্থ করে তোলেন। এতে সেন্ট ভ্যালেইটাইনের জনপ্রিয়তার প্রতি ঈর্ষান্বিত হয়ে রাজা তাকে মৃত্যুদণ্ড দেন। সেই দিন ১৪ ফেব্রুয়ারি ছিল। অতঃপর ৪৯৬ সালে পোপ সেন্ট জেলাসিউও ১ম জুলিয়াস ভ্যালেইটাইন’স স্মরণে ১৪ ফেব্রুয়ারিকে ভ্যালেন্টাইন’ দিবস ঘোষণা করেন।

 

পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের মত বাংলাদেশেও পালিত হয় বিশ্ব ভালবাসা দিবস। প্রত্যেকটি মানুষের কাছে এর সংজ্ঞা আলাদা। যেমন গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের রায়হানুল হক শিবলির ভাষায়,  মানুষের জীবনের প্রত্যেকটা দিন হতে পারে এক একটা ভ্যালেন্টাইন ডে। ভ্যালেন্টাইন ডে বলতে লাল শাড়ি, লাল টিপ পরে লাল গোলাপ হাতে গোড়াগুড়ি, ফুস্কা খাওয়া কিংবা পার্কে ভিড় জমানো নয়। ভ্যালেন্টাইন ডে একটা ইতিহাস।

 

স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটির মাজেদুল ইসলাম বলেন, ‘এই দিনটা আমি একজনকে উৎসর্গ  করবো তিনি হলেন সেন্ট ভ্যালেন্টিনে । অনেকেই হয়তও আজকের এই দিনের প্রকৄত ঘটনা জানে না । আর বর্তমান প্রজন্ম তো এখন এই দিনটাকে অন্যভাবে নিয়ে গেছে।’

 

ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটির মামুন বলেন, ‘বিশ্ব ভালবাসা দিবসের এই ভালবাসা ছড়িয়ে পড়ুক, সারা বিশ্বে, প্রতিটি ঘরে, প্রতিটি অন্তরে। ভালবাসা শুধু মাত্র প্রেমিক-প্রেমিকার মাঝে সীমাবদ্ধ নয়, তা প্রকাশ করতে পারি পরিবার, সমাজ, দেশ-জাতি ও মানবতার কল্যাণে।’

 

আর রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ঐশ্বর্যের মতে, ‘ভালোবাসা ভাষায় প্রকাশ করা যায় না, শুধুমাত্র অনুভূতি দিয়ে প্রকাশ করতে হয়। এটি একটি মানবিক অনুভূতি ও আবেগকেন্দ্রিক অভিজ্ঞতা। এর রং-রূপ-গন্ধ কিছুই নেই আছে শুধু অনুভূতি। বিশেষ কোন মানুষের জন্য ভালোবাসা স্নেহের শক্তিশালী বহিঃপ্রকাশ। বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর হয়তো এমন মুহূর্তকেই স্মরণ করে লিখেছিলেন, ‘দোহাই তোদের, এতটুকু চুপ কর/ভালবাসিবারে, দে মোরে অবসর।’

 

মেহেদী তারেক: সাধারণ সম্পাদক, গণ বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি

 

 

লেখাপড়া২৪.কম/আরএইচ

 

পছন্দের আরো পোস্ট