আইসিটি খাতের উন্নয়নে কপিরাইট আইন

IMG_0283১৬ জানুয়ারি (শনিবার) সফটওয়্যার ও তথ্যপ্রযুক্তি খাতের মেধাস্বত্ব সংরক্ষণে করণীয় বিষয়গুলো নিয়ে রাজধানীতে শনিবার এক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ‘কপিরাইট ওয়ার্কশপ: প্রোটেক্ট ইওর সফটওয়্যার প্রোডাক্ট/ অ্যাপ/ গেইম/ ক্রিয়েটিভ অ্যাসেটস’ শীর্ষক এ কর্মশালার আয়োজন করে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস) ও কপিরাইট অফিস।

 

বেসিস অডিটোরিয়ামে আয়োজিত এই কর্মশালায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বেসিস সভাপতি শামীম আহসান। তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ মোস্তাফা জব্বারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন কপিরাইট অফিসের কপিরাইট ডেপুটি রেজিস্টার জোহরা বেগম ও বেসিসের পরিচালক সানি মো. আশরাফ খান।

 

বেসিস সভাপতি শামীম আহসান বলেন, সফটওয়্যার পণ্য ও সেবার ক্ষেত্রে মেধাস্বত্ব সংরক্ষণ ও পেটেন্ট আইনের যথাযথ প্রয়োগ নিশ্চিত প্রয়োজন। মেধাস্বত্ব সংরক্ষণ বা কপিরাইট আইনের জোরালো প্রয়োগ না থাকার কারণে দেখা যাচ্ছে কিছুদিন পরেই এসব পণ্য ও সেবার সোর্সকোড চুরি হয়ে আরেকটি অ্যাপ্লিকেশন, সফটওয়্যার তৈরি হচ্ছে। ফলে মূল ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে আর্থিকসহ নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হতে হচ্ছে, তারা নানাভাবে প্রতারিত হচ্ছেন। তাই দেশের সফটওয়্যার খাতের উন্নয়নে মেধাস্বত্ব আইনের সঠিক প্রয়োগ ও এ বিষয়ে সচেতনতা তৈরি জরুরি।

 

মোস্তাফা জব্বার বলেন, দেশের সফটওয়্যার ও আইটি খাত কপিরাইট, আইপির যথাযথ প্রয়োগ না থাকার কারণে অনেকদিন ধরেই ভোগান্তির শিকার হয়ে আসছে। এ বিষয়ে দীর্ঘদিন ধরে সরকার ও যথাযথ কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করে আসছি। এ বিষয়ে তাদেরকে আরও তৎপর হওয়া প্রয়োজন বলে মনে করি। বেসিসের উদ্যোগে সচেতনতা তৈরি ও এ বিষয়ে পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য বেসিসকে ধন্যবাদ জানাই। আশাকরি আমরা শিগগিরই এ বিষয়ে ভালো কিছু কার্যক্রম দেখতে পাবো।

 

বেসিস ও কপিরাইট অফিস আয়োজিত এই কর্মশালায় কপিরাইট ইস্যুসমূহের সাধারণ ধারণা, ক্ষেত্রসমূহ, নিয়ন্ত্রণ, প্রয়োজনীয়তা ও পদ্ধতি বা করনীয় পদক্ষেপ ইত্যাদি বিষয়ে আলোচনা করা হয়। এতে বেসিসের শতাধিক সদস্য কোম্পানির প্রতিনিধিরা অংশ নেন।

 

লেখাপড়া২৪.কম/পিআর/এমএএ-০৬৬৯

পছন্দের আরো পোস্ট