চবির শিক্ষক আন্দোলন শিথিল

CUচট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) শিক্ষকদের অনির্দিষ্টকালের আন্দোলনের কর্মসূচিতে কিছুটা শিথিল করা হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রফেসর ড.মো.আবুল মনসুর। বোরবার দুপুরে সমিতির এক সাধারণ সভায় এমন সিদ্ধান্ত নেন শিক্ষক নেতারা। সভাপতি জানান, ৪-৯ জানুয়ারী পর্যন্ত পূর্বঘোষিত পরীক্ষাসমূহ (রুটিন অনুযায়ী) এবং যেসকল পরীক্ষা ইতিমধ্যে স্থগিত করা হয়নি শুধুমাত্র সেকল পরীক্ষা বিভাগ কর্তৃপক্ষ নিতে পারবে। তবে নতুন করে কোন পরীক্ষার তারিখ নির্ধারন করতে পারবে না বলেও সাংবাদিকদের জানান তিনি।

 

এদিকে ১০ জানুয়ারী বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে কোন প্রকার আন্দোলন কর্মসূচি থাকবে না। বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশন কর্তৃক গৃহীত সিদ্ধান্ত সমূহের সাথে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি একাত্বতা প্রকাশ করেছে। ফেডারেশন এর সিদ্ধান্ত অনুযায়ী শিক্ষকরা ৩ থেকে ৭ জানুয়ারী কালো ব্যাজ ধারণ করবেন। ৭ জানুয়ারী চবি শহীদ বুদ্ধিজীবি চত্বরে ১১টা থেকে ১টা পর্যন্ত অবস্থান কর্মসূচি পালিত হবে।

 

দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত ১১ জানুয়ারী থেকে সর্বাত্বক কর্মবিরতি (কমপিট শাটডাউন) অব্যাহত থাকবে। এদিকে সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, ক্যাম্পাসে কোন ক্লাস ও পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয় নি। ২০১৫-২০১৬ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের প্রথম ক্লাস করতে এসে বিভাগে ফাঁকা দেখে তারা দুঃখ প্রকাশ করেন। নাম প্রকাশ না করা শর্তে বাংলা বিভাগের ২০১৫-২০১৬ শিক্ষাবর্ষের এক শিক্ষার্থী বলেন, প্রথম ক্লাস করতে এসে শিক্ষকদের কর্মবিরতি দেখে খুব খারাপ লাগছে।

 

দাবি আদায়ে স্যাররা আন্দোলন করছে তবে এ ক্ষেত্রে তারা ক্লাস,পরীক্ষা বর্জন আওতামুক্ত রাখতে পারতেন।
এ ব্যাপারে শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রফেসর ড. মো. আবুল মনসুর বলেন, আমরা দীর্ঘ ৮ মাস ধরে শান্তিপূর্ণভাবে আন্দোনল করে আসছি। তবুও এখন পর্যন্ত দাবি আদায় হয় নি। আর কোন সুযোগ নেই। তাই আমরা এমন সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছি।

 

লেখাপড়া২৪.কম/চবি/কাইয়ূম/এমএএ-০৫৩২

পছন্দের আরো পোস্ট