‘কুইন্স ইয়ং লীডার’ মনোনীত হলেন রকিবুল হাসান

Imageবাংলাদেশি তরুণ রকিবুল হাসান মহামান্য রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ কর্তৃক প্রবর্তিত ‘কুইন্স ইয়ং লীডার’ প্রোগ্রামে মনোনীত হন।

 

গত ৮ ডিসেম্বর, মঙ্গলবার ‘দ্য কুইন্স ইয়ং লীডার প্রোগ্রাম’ আনুষ্ঠানিকভাবে এই ঘোষণা দেয়।

 

রকিবুল ‘Highly Commended Runner-Up’ এর বিশেষ ক্যাটাগরির আওতায় এই বিরল সন্মাননা লাভ করেন।  তিনি বিশ্বের কমনওয়েলথভুক্ত পঞ্চাশেরও অধিক রাষ্ট্রসমূহের মধ্যে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করবেন।

 

এই বছরব্যাপী প্রোগ্রামের মধ্য দিয়ে রকিবুল যুক্তরাজ্যর বিখ্যাত ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘লিডিং চেঞ্জ’ নামক স্বতন্ত্র অনলাইন লিডারশিপ কোর্সে অংশগ্রহন করবেন।

 

এর আগে মহামান্য রানীর উত্তরাধিকার টিকিয়ে রাখতে, গতবছর ৯ জুলাই মহামান্য রানীর পক্ষে, স্বয়ং দ্য ডিউক অব কেমব্রিজ প্রিন্স হ্যারি কমনওয়েলথভুক্ত রাষ্ট্রসমূহের মধ্যে প্রভাবশালী যুবনেতৃত্ব অনুসন্ধান করা শুরু করেন।

 

রকিবুল এখন উভয় বাংলাদেশ ও মহামান্য রানীর পক্ষে রাষ্ট্রদূতের দায়িত্ব পালন  করবেন।

 

দক্ষিন এশিয়া ও বাংলাদেশী সমাজে নেতৃত্ব বিকাশে  অনবদ্য ভূমিকা রাখার জন্য ২০১৪ সালের শুরুর দিকে প্রতিবেশী ভারতের মণিপুর রাজ্যর মূখ্যমন্ত্রি ভি কে দুগোল তাকে সর্বোচ্চ মর্যাদা সম্পর্ণ ‘বিশ্ব যুব এওয়ার্ড’ প্রধান করেন।  একই বছরের শেষের দিকে, উদীয়মান ৪৬ দক্ষিন এশীয় পেশাজীবীদের একজন হিসাবে,  ধাকাস্থ  মার্কিণ  দূতাবাস শান্তি প্রতিষ্ঠা বিষয়ক নেপালে এক আঞ্চলিক কর্মশালায় প্রেরণ করে। সম্প্রতি তিনি থাইল্যান্ডের ব্যাঙ্ককে এশীয় আঞ্চলিক শান্তি সম্মেলনে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করেন। বাংলাদেশে অবস্থিত ‘জাতিসঙ্ঘের যুব উপদেষ্টা বোর্ডে’র নীতিনির্ধারণী মিটিং এ প্রায়ই অংশগ্রহণ করেন।

 

দক্ষিণ এশিয়ার ২০টিরো অধিক সংবাদপত্রে রকিবুল নানাধর্মী মন্তব্য কলাম লিখেন।  এদের মধ্যে ধর্মীয় জঙ্গীবাদ, শান্তি-প্রতিষ্ঠা, নিরাপত্তা ইত্যাদি বিষয় রয়েছে।  বাংলাদেশ টুডেতে সাংবাদিকতা পেশা গ্রহণের আগে তিনি বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব পিস এন্ড সিকিউরিটি স্টাডিস এ নিরাপত্তা বিশ্লেষক হিসাবে দায়িত্ব পালন করতেন।

 

গত কয়েক বছরে তিনি শত নাগরিক সাংবাদিকদের প্রশিক্ষণ দিয়েছেন।  তিনি বিশ্বাস করেন স্কুল/কলেজের কোমলমতি কিশোরদের বিকাশের সময় যদি মতপ্রকাশের স্বাধীনতা বিষয়ক সচেতনতা সৃষ্টি করা যায়, পরবর্তীতে জাতীয় জীবনে তারা সুদূর প্রসারী ভূমিকা রাখতে পারে।

 

রকিবুল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শান্তি ও সঙ্ঘর্ষ অধ্যয়ণ বিভাগে স্নাতক ডিগ্রী সম্পন্ন করেন।  তিনি এখন ডেনমার্কে ওমেন ডেলিভারের দেয়া তিন বছর ব্যাপী ফেলোশীপ করছেন। এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের ‘ওমেন ডেলিভার’ রকিবুলকে বিশ্বের  দুই শত জনের একজন ইয়ং লীডার হিসাবে ঘোষণা দেয়।

 

তিনি বৃহত্তম আঞ্চলিক যুব সংগঠন, ‘সাউথ এশিয়ান ইয়ুথ সোসাইটি’র মিডিয়া বিভাগের প্রধান হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। এর আগে ২০১৪ সালে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শান্তি ও সংঘর্ষ অধ্যয়ন বিভাগ থেকে স্নাতক ডিগ্রী অর্জন করেন।

 

লেখক ‘কুইন্স ইয়ং লীডার’ প্রোগ্রামের একজন সুপারিশদাতা ও দৈনিক বাংলাদেশ টুডের নিউজ এডিটর।

 

 

লেখাপড়া২৪.কম/প্রেবি/আরএইচ

পছন্দের আরো পোস্ট