রাবির বিদ্যুত খাতে ২ কোটি টাকার প্রকল্প

IMG_20151210_104909109রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের কোনো স্থানে বিদ্যুতের সমস্যা হলে পিডিবি’র কাছে ধরণা দিতে হতো। সেখান থেকে বিদ্যুতের সংযোগ বন্ধ না করা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের সদস্যা দূর করা যেত না। এছাড়াও ঝড়ে গাছপালা ভেঙ্গে বিদ্যুত সংযোগ বিচ্ছিন্ন হলে ক্যাম্পাসে নেমে আসতো মহাদূর্ভোগ।তবে এবার এসব দূর্ভোগ মোকাবেলায় একটি যুগান্তকারী উদ্যোগ নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

 

সম্প্রতি দুই কোটি টাকা ব্যয়ে বিদ্যুত খাতে সামগ্রিক উন্নয়নের লক্ষ্যেএকটি পরিকল্পনা হাতে নেওয়া হয়েছে বলে জানান বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকৌশল দফতরের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মো. আবুল কালাম আজাদ।আগামী দুই মাসের মধ্যেই এ কাজ শেষ হবে বলেও জানান তিনি।

 

বিশ্ববিদ্যালয় প্রকৌশল দফতরের সূত্র মতে, ক্যাম্পাসেরআবাসিক ও একাডেমিক এলাকাকে ভাগ করে বিদ্যুত সরবরাহ নিয়ন্ত্রণকরা, শর্ট সার্কিট হলে বিদ্যুত স্বয়ংক্রিয়ভাবে বন্ধ করাসহ একাধিক কাজের জন্যএরই মধ্যে ২৬ লাখ টাকা ব্যায়ে বিদ্যুত নিয়ন্ত্রক দুটি ‘সুুইজ গিয়ার’কেনা হয়েছে। নতুন একটি কক্ষ তৈরী করে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিদ্যুত অফিসে ওই সুইজ গিয়ার দুটি স্থাপন করা হয়েছে। প্রথম পর্যায়ে ক্যাম্পাসকে দুটি এলাকায় ভাগ করে ওই সুুইজ গিয়ার দিয়ে কাজ শুরু করা হয়েছে। গত ৯ ডিসেম্বর থেকে প্রাথমিকভাবে ওই সুইজ গিয়ার দুটি চালু করা হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও উপ-উপাচার্যের বাস ভবন, প্রশাসন ভবন, কাজী নজরুল ইসলাম মিলনায়তন ও ছাত্রদের আবাসিক হলসহ গোটা পূর্ব পাড়ায় একটি সুইজ গিয়ার দিয়ে বিদ্যুত নিয়ন্ত্রণ করার কাজ শুরু হয়েছে। এছাড়া ক্যাম্পাসের সকল একাডেমিক ভবন, শিক্ষকদের ক্লাব (জুবেরী ভবন) ও ছাত্রীদের আবাসিক হলসহ গোটা পশ্বিম পাড়ায় অপর সুইজ গিয়ার দিয়ে বিদ্যুত সরবরাহের কাজ করা হচ্ছে।

 

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকৌশল দফতরের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মো. আবুল কালাম আজাদ বলেন, ঝড়েক্যাম্পাসেরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুত নতুন করে সংযোগ দিতে কয়েক দিন লেগে যেত। সেই অবস্থা থেকে বের হতে একটি লিফটার গাড়ী ও স্তুপ সরানো একটি গাড়ি ক্রয়ের জন্য টেন্ডার হয়ে গেছে। ৯০ লাখ টাকা ব্যায়ে স্তুপ সরানো গাড়িটি ক্রয় করা হবে।

 

তিনি আরও বলেন, রাবিতে প্রতিদিন ৩ থেকে সাড়ে ৩ মেগাওয়াট বিদ্যুত খরচ হয়। নগরীর তালাইমারিতে অবস্থিত পিডিবি অফিস থেকে ক্যাম্পাসে এই বিদ্যুত সরবরাহ করা হয়। তাই, চাইলেও আগে বিদ্যুত নিয়ন্ত্রণ করা যেত না। কিন্তু সুইজ গিয়ার ক্রয়ের ফলে তালাইমারী থেকে বিদ্যুত এসে জমা হবে ওই গিয়ারে। পরে সেখান থেকে ইচ্ছামতো ক্যাম্পাসে সরবরাহ করা হবে।

 

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক চৌধুরী সারওয়ার জাহান বলেন, আবাসিক এলাকায় এভাবে সুইজ গিয়ার দিয়ে বিদ্যুত নিয়ন্ত্রণের উদ্যোগ রাবিতেই প্রথম। এর ফলে একাডেমিক এলাকায় সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুত সরবরাহ সম্ভব হবে। রাতে আবাসিক এলাকায়ওথাকবে পূর্ণ বিদ্যুত সরবরাহ।

 

তিনি আরও বলেন, ক্যাম্পাসের ভেতরে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন (১১ হাজার কেভি) বিদ্যুতের তার অনেক নিচে থাকায় প্রায়ই দূর্ঘটনা ঘটতো। তাই সেই তার অনেক উপরে নেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিটি স্থানে রাতে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন লাইটের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এতে করে ক্যাম্পাসেচুরি-ছিনতাই কমে গেছে বলেও মনে করেন তিনি।###

 

লেখাপড়া২৪.কম/রাবি/তমাল/এমএইচ-৩০২

পছন্দের আরো পোস্ট