সামাজিক যোগাযোগ বন্ধে বশেমুরবিপ্রবি শিক্ষার্থীদের মিশ্র প্রতিক্রিয়া

বশেমুরবিপ্রবি.শিক্ষার্থীবাংলাদেশে গত বুধবার থেকে সাময়িকভাবে বন্ধ রয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকসহ কয়েকটি অ্যাপস। নিরাপত্তজনিত কারণ দেখিয়ে ফেসবুকের সাময়িক বন্ধ রাখাকে কেন্দ্র করে হয়েছে বিভিন্ন মহলে বির্তক । অনেকে সরকারের এ সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন। আবার অনেকে এটি সহজভাবে নিতে পারেননি।

 

ফেসবুক, ভাইবার, হোয়াটসঅ্যাপসহ সামাজিক যোগাযোগের সব মাধ্যম সাময়িকভাবে বন্ধ করে দেওয়ায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (বশেমুরবিপ্রবি) সাধারন শিক্ষার্থীরা । ২২ নভেম্বর (রবিবার) শিক্ষার্থীরা এ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন ।

 

কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (সিএসই) বিভাগের শিক্ষার্থী মাগফুর রুমি বলেন, “এটা কোন সঠিক পদক্ষেপ হতে পারে না। এগুলো এখন মানুষের সবচেয়ে বড় যোগাযোগের মাধ্যম । তা ছাড়া যাদের দরকার তারা ঠিকই কোন না কোন পদ্ধতি খুঁজে নেবে । এগুলো বন্ধ করে হয়ত কয়েক মূহুর্তের জন্য অপরাধ বন্ধ করা যেতে পারে কিন্তু তা কখনো কাঙ্খিত ফল দিতে পারবে না।

 

একাউন্টিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের শিক্ষার্থী প্রীতি কুসুম চাকমা বলেন, “বর্তমান সময়ে যোগাযোগের সবচেয়ে সহজ উপায় হলো সামাজিক মাধ্যমের সাইটগুলো, যা সমস্ত বিশ্বকে হাতের কাছে এনে দিয়েছে। সরকার জনগণের ভালো চায় তবে বর্তমান সময়ে যোগাযোগ ব্যবস্থাকে বাদ দিয়ে চলাটা একটু হলেও সবাইকে সমস্যায় ফেলে দিয়েছে। আশা করছি সরকার এই সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে সামাজিক মাধ্যমগুলো ব্যবহারের সুযোগ করে দেয়ার ব্যাপারে সুদৃষ্টি রাখবে।

 

পরিসংখ্যান বিভাগের শিক্ষার্থী মোঃ শিমুল হোসেন বলেন, “ফেসবুক সহ অন্যান্য সাইট গুলো শুধুমাত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম হিসেবেই ব্যবহার হয়না, এগুলো তথ্য পাওয়ারও মাধ্যম। সরকারের এই পদক্ষেপের ফলে এটা ব্যাহত হচ্ছে । এটা কোন সমাধান না, সরকারের বিকল্প কোন ব্যবস্থা নেয়া উচিত।

 

সরকারের এ সিদ্ধান্তকে সমর্থন করেন না বলে জানিয়েছেন সমাজবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী মোঃ রেজোয়ান হোসেন। তিনি বলেন “যখন বন্ধই করা হলো তখন আগে থেকে সাধারণ জনগণকে সতর্ক করে এবং সময়সীমা জানিয়ে দিয়ে বন্ধ করা উচিত ছিল। স্বাধীন দেশের স্বাধীন মানুষ হিসেবে নিজেকে মনে হচ্ছে না বলে জানান তিনি। মনে হচ্ছে গৃহ বন্দী হয়ে বাস করছি। কোথা থেকে কি হয়ে গেলো বা যাচ্ছে এগুলো সম্পর্কে কিছুই জানতে পারলাম না।

 

অন্যদিকে সরকারের এই সিদ্ধান্তকে সমর্থন করে কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (সিএসই) বিভাগের শিক্ষার্থী আব্দুল জব্বার খান মিতুল বলেন, “সরকার জনগণের ভালোর জন্যই এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। আশা করছি সরকার খুব শীঘ্রই উদ্ভূত সমস্যার সমাধান করে জনগণকে ভালো কিছু উপহার দেবে।

 

বিটিআরসির সিস্টেমস অ্যান্ড সার্ভিসেস বিভাগের সহাকারী পরিচালক তৌসিফ শাহরিয়ার স্বাক্ষরিত নির্দেশনায় বলা হয়, ‘ফেসবুক, ভাইবার ও হোয়াটসঅ্যাপ তাৎক্ষণিকভাবে সাময়িক সময়ের জন্য বন্ধ করার আপনাকে নির্দেশ দেওয়া হলো। পরে একই রকম আরেকটি নির্দেশনায় স্কাইপ, লাইন, ট্যাংগো, হ্যাংআউটসহ অন্যান্য সামাজিক মাধ্যমের ওয়েবসাইটও বন্ধ করার নির্দেশ দেওয়া হয়।#

 

লেখাপড়া২৪.কম/তন্ময়/আরএইচ-৪৬৭২

পছন্দের আরো পোস্ট