ঢাবি বিশ্ব ধর্ম ও সংস্কৃতি বিভাগের আলোচনা সভা

????????????????????????????????????

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বিশ্ব ধর্ম ও সংস্কৃতি বিভাগ এবং সেন্টার ফর ইন্টাররিলিজিয়াস এন্ড ইন্টার কালচারাল ডায়ালগ (সিআইআইডি) এর যৌথ উদ্যোগে “বিশ্ব ধর্ম ও সংস্কৃতি বিভাগ: একটি প্রত্যয় ও প্রত্যাশার মাইমোড্রামা” শীর্ষক এক আলোচনা সভার উদ্বোধন করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেন, ‘বাঙালি সংস্কৃতিতে মিশে আছে অসাম্প্রদায়িকতা, এটিই আমাদের শক্তি। এই শক্তি ধারণ করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় আমাদের এগিয়ে যেতে হবে।’ গত (১২ নভেম্বর) বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র মিলনায়তনে এই আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

 

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশনের চেয়ারম্যান ইকরাম আহমেদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান। আলোচনা সভায় মূল বক্তব্য প্রদান করেন বিশ্ব ধর্ম ও সংস্কৃতি বিভাগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. কাজী নুরুল ইসলাম। স্বাগত বক্তব্য রাখেন সেন্টার ফর ইন্টাররিলিজিয়াস এন্ড ইন্টার কালচারাল ডায়ালগ-এর পরিচালক ড. ফাজরীন হুদা।

 

বিভাগীয় চেয়ারম্যান ড. ফাদার তপন ডি রোজারিও-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উদ্বোধনী বক্তব্যে উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেন, বর্তমান সময়ে আন্তঃধর্মীয় সাংস্কৃতিক সমন্বয় গড়ে তোলা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সকল ধর্মের মূল লক্ষ্য মানবকল্যাণ। কিন্তু কিছু কিছু জায়গায় পরিলক্ষিত হচ্ছে ধর্মই অধর্মের কারণ। সিরিয়ায় একজন মুসলিম আরেক মুসলিমের উপর হামলা চালাচ্ছে। শরনার্থী হচ্ছে মানুষ। ৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে ধর্মের নামে মানুষ হত্যা করা হয়েছিল।

 

উপাচার্য আরও বলেন, ধর্মের নামে মানুষকে নির্যাতন করা যাবে না। সকল ধর্মের লোকদের সমান অধিকার আছে বাংলাদেশে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বলেছেন, ধর্মনিরপেক্ষতা মানে ধর্মহীনতা নয়। তরুণ প্রজন্মকে সত্যিকার অর্থে এই প্রত্যয়ে মানবধর্মে দীক্ষিত হতে হবে। কোন ধর্মই হত্যা, হানাহানি সমর্থন করে না। বাঙালি সংস্কৃতিতে মিশে আছে অসাম্প্রদায়িকতা, এটিই আমাদের শক্তি। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় আমাদের এগিয়ে যেতে হবে, এই চেতনাকে নিয়েই গড়ে তুলতে হবে বাংলাদেশ। সেখানে ধর্মের কোন বিভাজন থাকবে না।

 

আলোচনা সভা শেষে Light Versus Darkness শীর্ষক একটি মূকনাট্য উপস্থাপিত হয়।

 

লেখাপড়া২৪.কম/ঢাবি/পিআর/স্বশা-৪৪১৩

পছন্দের আরো পোস্ট