সাবেক প্রধান শিক্ষিকা মনোয়ারা খাতুনের ইন্তেকাল

ঝিনাইদহ সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষিকা মনোয়ারা খাতুন বার্ধক্যজনিত রোগে সোমবার দুপুরে ঢাকার মিটফোর্ড হাসপাতালে ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল­াহি… রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৯৫ বছর।

তিনি ঝিনাইদহের সর্বস্তরের মানুষের কাছে ‘আপাজী’ নামে পরিচিত ছিলেন।
মনোয়ারা খাতুন ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে দেশের সকল প্রগতিশীল আন্দোলনের নেত্রী ছিলেন।

তিনি মহিলা পরিষদ- ঝিনাইদহ জেলা শাখা, নারী সমাজ কল্যাণ সমিতির সভাপতিসহ ঝিনাইদহের বিভিন্ন সংগঠনের গুরুত্বপূর্ণ পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন।

শনিবার রাতে অসুস্থ বোধ করলে তাকে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এরপর তার শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে উন্নত চিকিৎসার জন্য রোববার ঢাকার মিটফোর্ড হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

সেখানে সোমবার দুপুরে আপাজী শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

ঝিনাইদহ পৌরসভার প্রথম চেয়ারম্যান মরহুম ডাক্তার কে. আহাম্মদের স্ত্রী মনোয়ারা খাতুন। মৃত্যুকালে তিন ছেলে, আত্ময়-স্বজনসহ দেশ-বিদেশে অসংখ্য ছাত্রী ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

পারিবারিক সূত্র জানায়, মরহুমার কফিনে ঝিনাইদহে বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে মঙ্গলবার বাদ যোহর স্থানীয় উজির আলী ঈদগাহ ময়দানে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। এরপর ঝিনাইদহ পৌর গোরস্থানে আপাজীর দাফন সম্পন্ন হবে।

ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসক মো. শফিকুল ইসলাম, পুলিশ সুপার মো. আলতাফ হোসেন, মহিলা পরিষদ ঝিনাইদহ জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মিনা সেলিম, ঝিনাইদহ প্রেস ক্লাবের সভাপতি এম. সাইফুল মাবুদসহ বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে মনোয়ারা খাতুনের মৃত্যুতে গভীর শোক ও পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানানো হয়েছে।

স: ইএইচ

পছন্দের আরো পোস্ট