প্রতিষ্ঠার আট বছরেও কুবিতে নির্মাণ হয়নি মুক্তিযুদ্ধের ভাষ্কর্য

cuপ্রতিষ্ঠার আট বছর পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে নির্মাণ করা হয়নি মুক্তিযুদ্ধের কোন ভাষ্কর্য। ফলে শিক্ষার্থীদের মাঝে তীব্র ক্ষোভ বিরাজ করছে।

 

সরজমিনে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস ঘুরে দেখা যায়, ৫০ একর জায়গার মধ্যে কার্যত ২০-৩০ একর জায়গার মধ্যে বিস্তৃত কুবি ক্যাম্পাস। এছাড়া চার বছর পূর্বে ক্যাম্পাসের পশ্চিম দিকে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের নির্মাণ কাজ শুরু করা হলেও এখন পর্যন্ত তা অসমাপ্ত রয়েছে।

শিক্ষার্থীদের দাবি, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রবেশ পথের বাম দিকের টিলার উপর একটি মুক্তিযুদ্ধের ভাষ্কর্য নির্মাণের। প্রশাসনের স্বদিচ্ছার অভাবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার ৮ বছর পূর্ণ হলেও মুক্তিযুদ্ধের কোন ভাষ্কর্য নির্মান করা হয়নি বলে শিক্ষার্থীদের অভিযোগ।

ক্যাম্পাস সুত্রে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের পূর্ববর্তী উপাচার্য ড.আমীর হোসেন খানের সময় ক্যাম্পাসে মুক্তিযুদ্ধের ভাষ্কর্য নির্মাণের জন্য শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে দাবি জানালেও শেষ পযন্ত তা কার্যকর হয়নি। তবে গত বছরের শুরুর দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল প্রতিষ্ঠার পর হল গেটে বঙ্গবন্ধুর একটি মুরাল স্থাপন করে। এখানেই জাতীয় দিবসসহ অন্যান্য দিবস গুলোতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান উপাচার্যসহ সকল শিক্ষক-শিক্ষার্থী।

এ ব্যাপারে ক্ষোভ প্রকাশ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের ১ম ব্যাচের শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগ নেতা ইলিয়াছ হোসেন সবুজ বলেন “কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার সমসাময়িক সময়ে প্রতিষ্ঠিত সবগুলো বিশ্ববিদ্যালয়েই রয়েছে মহান মুক্তিযুদ্ধের ভাষ্কর্যসহ একাধিক মুরাল। কিন্তু কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার এতোদিন পরও গুরুত্বপূর্ণ এই কাজগুলো শুরু না হওয়ার জন্য আমি প্রশাসনকেই দায়ি করছি।”

 

তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মোঃ মজিবুর রহমান মজুমদার বলেন “কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে মহান মুক্তিযুদ্ধের ভাষ্কর্য ও মোরাল নির্মাণে আপাতত আমাদের লিখিত কোন পরিকল্পনা নেই তবে এই বিষয়ে আমাদের চিন্তা ভাবনা রয়েছে। অদূর ভবিষ্যতে আমরা কুবি ক্যাম্পাসে দৃষ্টি নন্দন মুক্তিযুদ্ধেও ভাষ্কর্য নির্মান করব।”

 

সঃ সুউ ফয়সাল

 

পছন্দের আরো পোস্ট