গুগল গ্লাস, এ যেন স্টেডিয়ামে বসে বিশ্বকাপ উপভোগ

আপনার প্রিয় দল বিশ্বকাপে খেলছে, আপনি বসে আছেন স্টেডিয়ামে – এমন একটা অনুভূতি পেতে কার না ইচ্ছে করে? ঘরে বসে এই অভিজ্ঞতা পেতে আপনাকে সাহায্য করবে গুগল গ্লাস৷google_glass-1

 

স্পোর্টস দলগুলো এবং সম্প্রচার কোম্পানিগুলো বেশি বেশি দর্শক টানার জন্য নানা প্রযুক্তি ব্যবহার করছেন, গুগল গ্লাস আর পিছিয়ে থাকে কেন? তারাও তাই ঝাঁপিয়ে পড়েছে স্পোর্টসকে গুগল গ্লাসের মাধ্যমে কী ভাবে সমন্বয় করা যায় তা নিয়ে৷

 

আর এটি প্রথম ব্যবহার করবে অ্যামেরিকান ফুটবল দল ফিলাডেলফিয়া ঈগলস৷ স্পোর্টসডেস্ক মিডিয়া-র প্রতিষ্ঠাতা এরিক ফার্নান্দেজ বলেছেন, ‘‘আমি যখন দলগুলোর সঙ্গে কথা বলে জানতে চাইলাম তারা কী ধরনের প্রযুক্তি চাইছে, তারা জানালো তাদের প্রথম চাহিদা গুগল গ্লাস এবং দ্বিতীয়টি স্ন্যাপ চ্যাট৷

 

 

২০১২ সালের এপ্রিলে বিস্ময়কর এই চশমার ধারণা দিয়ে বিশ্বে হৈচৈ ফেলে দিয়েছিল গুগল৷ সম্প্রতি তারা এটা বাজারে এনেছে যার দাম ১,৫০০ ডলার৷ গুগল গ্লাসের ব্যবসা উন্নয়ন প্রধান এরিক জনসেন বললেন, ‘‘ভক্তরা এই গ্লাস দিয়ে খেলা দেখার সময় এমন অভিজ্ঞতা পাবে যা আগে কখনো হয়নি৷”

 

 

আর খেলা চলতে থাকার সময় কোনো ফেসবুক ও টুইটার পোস্ট দেখতে হলে খালি একটা সুইচ টিপতে হবে, স্ক্রিনের একপাশেই সবশেষ টুইট বা পোস্টটি দেখা যাবে, ফলে খেলার কোনো অংশ মিস হওয়ার সম্ভাবনা নেই৷

 

 

খেলা দেখা এবং সেইসাথে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের সঙ্গে সমন্বয়ের ব্যাপারটি জানতে এ বছরের ফেব্রুয়ারিতে ১,০০০ মার্কিন নাগরিকের ওপর পরীক্ষা চালানো হয়েছে৷ ইন্ডিয়ানাপোলিস বাস্কেটবল দলের শীর্ষ এক কর্মকর্তা জানালেন, ‘কোনো খেলাকে কী ভাবে আরও জনগণের মধ্যে ছড়িয়ে দেয়া যায় এবং জনগণের সঙ্গে নিজেকে ফোনের মাধ্যমে সমন্বয় করতে পারে সেটাই আমাদের প্রধান লক্ষ্য৷’

 

 

‘গুগল গ্লাস’ নামে পরিচিত এই বস্তুটি আসলে মোবাইল কম্পিউটার আর চশমার মিলিত এক রূপ৷ এই চশমাটি দিয়ে ছবি তোলা, ইন্টারনেট ব্যবহার, ভিডিও রেকর্ড করা, এসএমএস পাঠানো – সব কাজ করা যায়৷ অর্থাৎ স্মার্টফোন দিয়ে যা করা সম্ভব, তা-ই করা যায় চোখে পরা এই চশমাটি দিয়ে৷

Google-glass

 

সাধারণের ব্যবহারের জন্য বাজারে ছাড়ার আগে গুগলের এই চশমাটি ব্যবহার করেছিলেন নির্বাচিত কিছু ব্যক্তি, যার মধ্যে রয়েছেন সফটওয়্যার ডেভেলপার, প্রোগ্রামার ইত্যাদি৷ ইউনিভার্সিটি অফ আলাবামা অ্যাট বার্মিংহামের কম্পিউটার বিজ্ঞান বিভাগে সহকারী অধ্যাপক রাগিব হাসানও গুগল গ্লাস নিয়ে কাজ করছেন৷

 

 

তার মতে কেবল অডিও, ভিডিও ও কম্পিউটারের কাজ নয় – কোনো একটি রাস্তায় চলার সময় সেটার প্রতিটি কোণে কী আছে তা আপনাকে জানিয়ে দেবে চশমাটি৷ এর মাধ্যমে ধারণা করা যায় প্রতিটি মুহূর্ত৷ রাগিব হাসান অবশ্য কম্পিউটারের তথ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে গুগল গ্লাস নিয়ে কাজ করছেন৷ সূত্র: এপি, এএফপি

 

স: ইএইচ

পছন্দের আরো পোস্ট